শনিবার, সেপ্টেম্বর ১৮, ২০২১

Close

Home বিনোদন সম্ভাবনাময় তারকা নিয়ে নয়, দিয়ে দেশকে পরিবর্তন করতে হবে

নিয়ে নয়, দিয়ে দেশকে পরিবর্তন করতে হবে

মডেল রিসতা জাসিয়া । সম্প্রতি দুটি ফ্যাশন হাউজের সাথে কাজ করেছেন। পড়াশোনা করছেন ইংরেজি মাধ্যমে, এ লেভেলস্ এ । তার ভাবনা, স্বপ্ন, সম্ভাবনা ও পরিবার নিয়ে কথা হয় ‘দ্য ডেলটা মেইল’এর সাথে ।

সৃজনশীলতা ও নেতৃত্ত্ব…
আমি ছোটবেলা থেকে আর্ট করি। আর্ট করতে আমার ভালো লাগে। ক্রাফটিং করতে ভালবাসি।

আই লাভ ক্রিয়েটিং থিংস। স্কুলে বিভিন্ন প্রজেক্ট করতাম। প্রজেক্টে নেতৃত্ব দিতাম। অন্যদের প্রজেক্টে হেল্প করতাম। ক্লাস থ্রি’তে পড়ার সময় স্কুলে বিভিন্ন ম্যাটারিয়াল দিয়ে নদী, ঘরবাড়ি, বিভিন্ন প্রাণি ইত্যাদি নিয়ে একটা থ্রিডি প্রজেক্ট বানিয়েছিলাম। সেটা সবাই খুব প্রশংসা করে। আমি সম্ভবত থার্ড হয়েছিলাম। র্আমি যখন গ্রেড সেভেনে এ পড়ি তখন চিড়িয়াখানার ছবি একেঁছি। ওই ছবিটার জন্য স্কুলে প্রথম হয়েছি। আমার মধ্যে একটি শিল্পী স্বত্ত্বা আছে।

যা হতে চাই…
বর্তমান সমাজে সবাই সফল হতে চায়। আমার পরিবার আত্বীয়স্বজন সবাই আমার দিকে তাকিয়ে আছে। সবাই ভাবে আমি কিছু একটা করে দেখাব। আমি আমাদের পরিবারে বড় মেয়ে। দাদুর বাড়ির দিক থেকেও আমি সবার বড়। আমার স্বপ্ন ও ভবিষৎতের ব্যাপারে আমার স্বাধীনতা আছে। মা বলে, তুমি যা ইচ্ছে তাই করতে পারো, তবে কেউ যেন তোমাকে খারাপ কিছু বলতে না পারে সেদিকে খেয়াল রেখো।
আমি নিজেকে খুব ভালোবাসি। আমি যদি নিজেকে ভাল না বাসি তাহলে পৃথিবীর কেউই আমাকে ভালোবাসবে না।

আমার মডেলিং করতে ভালো লাগে। আমার কাছে মনে হয় মডেলিং একটা আর্ট।

সবাই তো ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার হতে চায়, কিন্তু আমি আমার জীবনেকে চার দেয়াল বা কোন একটা কাজের মধ্যে সীমাবদ্ধ করে রাখতে চাইনা । আমি আমার স্বাধীনতার মাঝেই আমাকে খুঁজে পাই । আমার কাছে মনে হয় চাকরি থেকে ব্যবসা স্বাধীন। যদি সুযোগ আসে আমি একজন উদ্যেক্তা হতে চাই। একজন উদ্যেক্তা অনেক কিছু করতে পারে। অনেকের জন্য চাকুরীর ব্যবস্থা করতে পারে।

পছন্দ- অপছন্দ…
আমার যেকোন প্রাণী খুব পছন্দ। প্রাণীদের আমার খুব ভালো লাগে। বিশেষ করে বিড়াল ও কুকুর। আমি ঘুরতে খুব ভালোবাসি। ট্র্যাকিং করতে অসাধারণ লাগে। পাহাড়, সমুদ্র আমাকে টানে।
যারা অন্যকে নিয়ে হাসাহাসি করে তাদের আমার খুব অপছন্দ। আমি র‌্যাসিজমকে খুব অপছন্দ করি। আর ধর্ম নিয়ে ঝগড়া করা আমার কাছে অনেক অপছন্দের একটি বিষয়।

পছন্দের খেলা…
ভলিবল খেলতে ভালবাসি।

কেমন বাংলাদেশ চাই…
বাংলাদেশকে আমি খুব ভালোবাসি। আমার কানাডা যাওয়ার সুযোগ ছিল, কিন্তু আমি যাইনি। আমি বাংলাদেশ ছাড়তে চাইনা। কিন্তু এখানে মানুষ ধর্ম নিয়ে অনেক তুচ্ছ বিষয় নিয়ে উত্তেজনা সৃষ্টি করে যা আমার খুব অপছন্দ ।

আমি নিরাপদ সড়ক চাই। সবার জন্য নিরাপদ একটি পরিবেশ ও দেশ চাই। বিশেষ করে নারী, শিশু ও বৃদ্ধদের জন্য। মেয়েদের জন্য আলাদা বাস বা পরিবহন ব্যবস্থা চাই। মেয়েরা পাবলিক বাসে স্বাধীনভাবে চলতে পারে না ।

পছন্দের নায়ক…
অক্ষয় কুমার। এ ভার্সেটাইল এক্টর । সে নিজেকে যেকোন চরিত্রের জন্য তৈরি করে ফেলেন। তার চরিত্র গুলো অনেক মজার। হলিউডে লিওনার্দো, ফেনিস টিফিন। বাংলাদেশের মধ্যে আফরান নিশোকে অনেক ভালো লাগে।

পছন্দের নায়িকা…
জয়া আহসান, উনি আমার কাছে গডেস, ডিভা এন্ড এ ষ্ট্রং ওমান। বলিউডে দিপীকাকে অনেক পছন্দ। সে অনেক সুইট, হামবল। প্রীতি জীনতাকেও পছন্দ।

সিনেমা…
কমেডি মুভি দেখতে ভালো লাগে। আর কমেডি চরিত্রগুলা অনেক ভালো লাগে। মি. বিন’কে আমার খুব পছন্দ। অনেক ভয় করে তারপরও হরর মুভি দেখতে ভালো লাগে ।

প্রিয় খাবার…
এটা আসলে আমার মুডের উপর নির্ভর করে। পটেটো, বার্গার, ফ্রেঞ্চ ফ্রাই, এছাড়া যদি দেশী খাবারের কথা যদি বলা হয় তাহলে খিচুঁড়ি অনেক পছন্দ।

রোল মডেল…
আমার কোন রোল মডেল নেই।

আমার পরিবার….
বাবা- মা দু’জনেই চাকরি করেন। আম্মু মিডিয়ার সাথে জড়িত আছেন। মাঝেমধ্যে পত্রপত্রিকায় লেখালেখিও করেন। আমার দুইটা ছোট ভাই আছে তাওহিদ ও তামজিদ। তাওহিদ ৬ষ্ঠ শ্রেণীতে ও তামজিদ ৭ম শ্রেণীতে পড়ে।

পরিবারের সবার সাথে গল্প করা। আমার বাবা অনেক মজা করতে পারেন। বাবা আমাদের হাসানোর জন্য যেকোন কিছু করে করতে পারেন। আমাদের পরিবার খুবই মজার । বাবার জন্য আমরা সবাই খুব আনন্দে থাকি। বাবা বাইরে সবার সাথে খুব ফরমাল। এমনকি ওর পরিবারের সাথেও। কিন্তু আমাদের সাথে তিনি খুবই ইনফরমাল। আমার কাছে মনে হয় আমার বাবা পৃথিবীর সেরা বাবা। যদিও মাঝে মাঝে বিব্রত হই বাইরে গেলে। কোন সময়যে আমাদের হাসানোর জন্য কি করে বসেন।

একদিনের জন্য ক্ষমতা পেলে কি করবেন….
রাজনীতি আমি তেমন একটা পছন্দ করি না। রাজনীতিবিদরা অনেক প্রতিশ্রুতি দেয় কিন্তু তারা সেই প্রতিশ্রুতি রাখে না। ভাল রাজনীতিবিদ আছেন, তবে সংখ্যাটা কম। দেশ থেকে নিয়ে নয় দেশকে দিয়ে দেশের পরিবর্তন করতে হবে।

একদিনের জন্য ক্ষমতা পেলে….
একদিনের জন্য ক্ষমতা পেলে সবার মধ্যে খাবার পৌঁছে দিব। পেটের ক্ষুধার কষ্ট অনেক বেদনাদায়ক। যারা খেতে পায়না তাদের জন্য আমার অনেক খারাপ লাগে। শুধু ক্ষুধার জন্যই মানুষ অনেক কিছু করে ফেলতে পারে।

নারীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করব। আর শিশু ও বৃদ্ধদের জন্য কাজ করব। শুধু নারীদের জন্য একটি বাস সার্ভিস চালু করবো।

1 টি মন্তব্য

আপনার মন্তব্য দিন

আপনার মন্তব্য লিখুন!
এখানে আপনার নাম লিখুন

- Advertisment -
  • সর্বশেষ
  • আলোচিত

সাম্প্রতিক মন্তব্য

স্বঘোষিত মহাপুরুষ on লকডাউন বাড়লো আরও একসপ্তাহ
জান্নাতুল ফেরদৌস on চিরবিদায় কিংবদন্তি কবরীর